ঢাকা ১৬ জুলাই, ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম
পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র ম্যাথু মিলার উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন কোটা ইস্যু নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন এখন কার রাজাকারদের পরিণতি হবে ওই যুগের মতোই আরাকান আর্মি ও সরকারি বাহিনীর মধ্যে সংঘাত অব্যাহত গুলির শব্দে কেঁপে উঠল টেকনাফ সীমান্ত আজ থেকে একাদশে চূড়ান্ত ভর্তি শুরু,যা চলবে ২৫ জুলাই পর্যন্ত যারা নিজেদের রাজাকার বলে, তাদের কপালে পতাকা বাঁধার অধিকার নেই বললেন ডা. দীপু মনি জমজম হাসপাতাল পিএলসি বোর্ড সভায় নতুন চেয়ারম্যান,এমডি ও পরিচালক (অর্থ) নির্বাচিত চিত্রনায়িকা পরীমণি শাকিবখানকে ‘ফজলি আম আর রাজকে ‘করলা’র সঙ্গে তুলনা করেছেন হাসপাতাল ছেড়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প হাসপাতাল ছেড়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দেশের অর্থনীতি এখন যথেষ্ট শক্তিশালী বললেনে: প্রধানমন্ত্রী

বিশ্বব্যাংক থেকে ৯০ কোটি ডলার ঋণ পেল বাংলাদেশ

#

নিজস্ব সংবাদদাতা

২২ জুন, ২০২৪,  2:58 PM

news image
ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতের উন্নয়নে ৯০ কোটি ডলার বা প্রায় সাড়ে ১০ হাজার কোটি টাকার ঋণ অনুমোদন দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক বোর্ড এ অনুমোদন দিয়েছে। টেকসই জলবায়ু-সহনশীল প্রবৃদ্ধি নিশ্চিত করতে বাংলাদেশকে রাজস্ব ও আর্থিক খাতের নীতি শক্তিশালী করণ এবং শহরের অবকাঠামো ও ব্যবস্থাপনার উন্নতি করতে ঋণের এ অর্থ ব্যয় করা হবে।

শনিবার (২২ জুন) বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিস থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দ্বিতীয় রিকভারি অ্যান্ড রেজিলিয়েন্স ডেভেলপমেন্ট পলিসি ক্রেডিট-এর আওতায় ৫০ কোটি ডলার ঋণ পাওয়া যাব। এটি দিয়ে দুটি ক্রেডিট সিরিজের শেষে টেকসই প্রবৃদ্ধি ত্বরান্বিত করতে এবং জলবায়ু পরিবর্তনসহ ভবিষ্যতের ধাক্কাগুলির স্থিতিস্থাপকতা তৈরি করতে রাজস্ব ও আর্থিক খাতের সংস্কারে কাজে লাগবে। এর আওতায় প্রোগ্রামটি বাণিজ্য কর থেকে ভোগ এবং আয়করের রূপান্তরকে সহায়তা করে, যা বাংলাদেশকে প্রতিযোগিতামূলকতা শক্তিশালী করতে এবং এলডিসি উত্তরণের জন্য প্রস্তুত করতে সহায়তা করবে।

এতে বলা হয়, এটি ইলেকট্রনিক সরকারী ক্রয় (ই-জিপি সিস্টেম) এর জন্য পাবলিক প্রকিউরমেন্ট কর্তৃপক্ষকে প্রাতিষ্ঠানিকীকরণে সহায়তা করবে। যা ই-জিপি সংগ্রহের গড় সময় ৭০ দিন থেকে কমিয়ে ৫৫ দিনে করবে। এটি শক্তিশালী ব্যাঙ্কিং সেক্টর তত্বাবধান এবং ন্যাশনাল সেভিংস সার্টিফিকেটের উন্নত ব্যবস্থাপনা সমর্থন করে। এটি নগদ-ভিত্তিক সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির দক্ষতা এবং লক্ষ্যমাত্রা উন্নত করতে এবং সরকারী ও বেসরকারী জলবায়ু অভিযোজন এবং প্রশমন বিনিয়োগের পরিমাণ বাড়াতে সহায়তা করবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, ২০২১ সালে দেশের জনসংখ্যার প্রায় ৩৮ শতাংশ শহরাঞ্চলে বাস করত। ২০৫০ সালের মধ্যে এই সংখ্যা ৬০ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে বলে অনুমান করা হয়েছে। নগরায়নের প্রবণতা মূলত ঢাকা মেট্রো এলাকায় ম্যানুফ্যাকচারিং সেক্টরের চাকরির দ্রুত বৃদ্ধির দ্বারা চালিত হয়েছে, যা ঢাকাকে বিশ্বের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ শহরগুলির একটিতে পরিণত করেছে। সেকেন্ডারি শহরগুলিতে জলবায়ু সহনশীল উন্নয়ন ঢাকায় যানজট কমাতে সাহায্য করার পাশাপাশি জলবায়ু অভিবাসীদের শুষে নিতে সাহায্য করবে। প্রকল্পটি এই সব শহর জুড়ে পরিকাঠামো এবং পরিকল্পনায় সমন্বিত বিনিয়োগকে অগ্রাধিকার দেয়। পৃথক শহর পরিকল্পনার তুলনায় একটি সামগ্রিক পদ্ধতির নিশ্চিত করবে।

প্রকল্পটি কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ করিডোর এবং সিটি ক্লাস্টারগুলির উন্নয়নে সহায়তা করার জন্য বিনিয়োগ দিতে সাহায্য করবে। এটি কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে, গ্রামীণ-শহুরে সংযোগ এবং স্থানান্তর বাড়াতে এবং খাদ্য সরবরাহের চেইনকে শক্তিশালী করতে এবং দেশীয় বাজার এবং বৈশ্বিক মূল্য শৃঙ্খলের সাথে লিঙ্ক করতে সহায়তা করবে। এটি রাস্তা ও বাস টার্মিনালের উন্নতির মাধ্যমে নির্বাচিত শহর এবং আশেপাশের ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে সংযোগ উন্নত করবে এবং পর্যটন, খোলা জায়গা এবং অন্যান্য সুবিধা বৃদ্ধি করে নতুন অর্থনৈতিক সুযোগ তৈরি করবে। পরিকাঠামোর নকশাগুলি মহিলা ব্যবহারকারীদের চাহিদা এবং বৃষ্টির জল সংগ্রহ সহ সবুজ বিল্ডিং বৈশিষ্ট্যগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করবে।

বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশ ও ভুটানের কান্ট্রি ডিরেক্টর আবদৌলায়ে সেক বলেন, নির্ধারক সংস্কার বাংলাদেশকে প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে এবং জলবায়ু পরিবর্তন ও অন্যান্য আঘাতের প্রতি স্থিতিস্থাপকতা জোরদার করতে সাহায্য করবে। বিশ্বব্যাংকের নতুন এই অর্থায়ন বাংলাদেশকে দুটি গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে সাহায্য করবে যেমন- আর্থিক খাত এবং নগর ব্যবস্থাপনায় উচ্চ মধ্যম আয়ের অবস্থার উন্নতিতে সহায়তা করবে।

বিশ্বব্যাংকের সিনিয়র ইকোনমিস্ট এবং প্রোগ্রামের টাস্ক টিম লিডার বার্নার্ড হ্যাভেন বলেন, বিনিয়োগ বাড়াতে এবং আনুষ্ঠানিক ব্যাংকিং ব্যবস্থা থেকে বাদ পড়াদের জন্য অর্থের অ্যাক্সেস উন্নত করার জন্য বাংলাদেশের জন্য একটি ভালোভাবে কার্যকরী আর্থিক খাত গুরুত্বপূর্ণ। সরকার বাহ্যিক ভারসাম্যহীনতা মোকাবিলায় শক্তিশালী সামষ্টিক অর্থনৈতিক সংস্কার এবং আর্থিক খাতকে শক্তিশালী করার জন্য একটি নতুন আইনী কাঠামো নিয়েছে।

তিনি বলেন, অর্থায়ন খাত ব্যাংক পুনরুদ্ধার কাঠামোকে স্ট্রীমলাইন করতে সাহায্য করবে। কম মূলধনী ব্যাংকগুলিকে মোকাবিলা করার জন্য একটি দ্রুত সংশোধনমূলক কর্ম কাঠামো বাস্তবায়ন করবে। এটি অর্থনৈতিক মন্দা এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণদের রক্ষা করে সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচিকেও শক্তিশালী করবে।

এছাড়া রেসিলিয়েন্ট আরবান অ্যান্ড টেরিটোরিয়াল ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্টের আওতায় পাওয়া যাবে ৪০ কোটি ডলার। এ প্রকল্পের আওতায় দক্ষিণের কক্সবাজার থেকে পঞ্চগড় পর্যন্ত মহাসড়কের ৯৫০ কিলোমিটারের বেশি জুড়ে অর্থনৈতিক করিডোর বরাবর সাতটি শহরের ক্লাস্টারে জলবায়ু-স্থিতিস্থাপক এবং জেন্ডার-প্রতিক্রিয়াশীল শহুরে অবকাঠামো এবং নগর ব্যবস্থাপনার সক্ষমতা উন্নত করতে সহায়তা করবে।

logo

সম্পাদক : হেফাজুল করিম রকিব

নির্বাহী সম্পাদক : শাহ এম রহমান বেলাল