ঢাকা ১৬ জুন, ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম
ঢাকায় কখন কোথায় ঈদের জামাত ২০২৩ সালে প্রাকৃতিক দুর্যোগে বাংলাদেশে ১৮ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত সৌদির সঙ্গে মিল রেখে দেশের বিভিন্ন স্থানে ঈদ উদযাপন ইসকন মহারাজকে দেখতে হাসপাতালে সিসিক মেয়র ও এমপি সুইজারল্যান্ডে জড়ো হয়েছেন বিশ্বনেতারা, যুদ্ধ অবসানের প্রত্যাশা বঙ্গবন্ধু সেতুতে একদিনে সর্বোচ্চ টোল আদায় ইসরায়েলে মুহুর্মুহু রকেট হামলা চালিয়েছে হিজবুল্লাহ ঢাকায় ঝুম বৃষ্টি, সন্ধ্যার পর ২ বিভাগে ভারী বর্ষণের আভাস তৌসিফ-নীহাকে নিয়ে সৌখিনের ঈদ চমক বগুড়ায় আইএফআইসি ব্যাংকের সিন্দুক ভেঙে ২৯ লাখ টাকা চুরি

মা-বাবার দায়িত্ব নিলেন তরুণী, বেতন ৫৭০ ডলার

#

২৯ মে, ২০২৩,  7:34 PM

news image

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট জানিয়েছে, সম্প্রতি নিয়ানানের (৪০) চাকরিজীবনে কিছু পরিবর্তন আসে। তার কাজের চাপ বাড়ছিল। অফিসের পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নিতে হিমশিম খেতে হচ্ছিল তাকে। এ পরিস্থিতিতে মানসিক চাপে ভুগছিলেন তিনি।


ইন্ডিয়া ডটকমে বলা হয়েছে, নিয়ানান ১৫ বছর ধরে কাজ করছিলেন একটি বার্তা সংস্থায়। 


মেয়ের এই দুর্দিনে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন তার মা-বাবা। তারা নতুন চাকরির প্রস্তাব দেন নিয়ানানকে। আগের চাকরি ছেড়ে দেয়ার পরামর্শ দিয়ে দম্পতি জানান, তারাই কন্যার অর্থনৈতিক ভার বইবেন। বদলে কন্যাকেও তাদের জন্য কিছু করতে হবে। এর পরই চাকরি ছেড়ে দিয়ে বাবা ও মায়ের দায়িত্ব নেন নিয়ানান। এর জন্য তাকে প্রতি মাসে চিনা মুদ্রায় চার হাজার ইউয়ান দেয়া হয়। পেনশন থেকেই কন্যাকে ওই অর্থ বেতন দিয়ে থাকেন দম্পতি।


তার বয়স্ক বাবা-মায়ের মানসিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং তাদের দেওয়া আর্থিক সহায়তার দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে, নিয়ানান একটি ‘পূর্ণ-সময়ের কন্যার’ ভূমিকা গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। তিনি এই ভূমিকাটিকে ‘ভালোবাসা ভরা পেশা’ হিসাবে বর্ণনা করেছিলেন। তার দৈনন্দিন রুটিন হলো, সকালে তার বাবা-মায়ের সঙ্গে এক ঘন্টা নাচে সঙ্গ দেয়। তারপর তারা একসঙ্গে মুদি দোকানে কেনাকাটা করতে যায়। সন্ধ্যায়, সে তার বাবার সঙ্গে রাতের খাবার রান্না করে। উপরন্তু, তিনি ইলেকট্রনিক ডিভাইস পরিচালনা সহ বিভিন্ন গৃহস্থালির কাজগুলো দেখাশোনা করেন। নিয়ানান তার পিতামাতার ড্রাইভার হিসাবেও কাজ করে এবং মাসিক পারিবারিক ভ্রমণের আয়োজন করে।


তিনি জানিয়েছেন, এ কাজ করতে তার ভালোই লাগছে। তবে এর চেয়েও ভালো কোনো চাকরি পেলে স্বাচ্ছন্দ্যে তা গ্রহণ করতে বলেছেন তার মা-বাবা।

logo

সম্পাদক : হেফাজুল করিম রকিব

নির্বাহী সম্পাদক : শাহ এম রহমান বেলাল